মায়ের লাশ আনতে ময়মনসিংহ যাচ্ছেন মরিয়ম মান্নান

দেশজুড়ে

সেপ্টেম্বর ২৩, ২০২২ ২:২০ অপরাহ্ণ

প্রতিনিধি

গত ২৭ আগস্ট খুলনার দৌলতপুর থানার মহেশ্বরপাশা খানাবাড়ি এলাকা থেকে নিখোঁজ হন মরিয়ম মান্নানের মা রহিমা বেগম (৫২)। দীর্ঘদিন খোঁজাখুঁজির পর গত ২২ সেপ্টেম্বর রাতে ফেসবুক স্ট্যাটাসে মরিয়ম মান্নান লিখেন : “আমার মায়ের লাশ পেয়েছি আমি এইমাত্র”।এরপরে আরেকটি স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন : ময়মনসিংহ,ফুলপুর যাচ্ছি।আমার হতভাগিনী মায়ের পঁচা গলা লাশ অফিসিয়ালি বুঝে নিতে। আমার সাংবাদিক ভাইবোন এবং আমার বন্ধু, আমার শুভাকাঙ্খীদের সাথে কথা বলবো এবং প্রশাসনিক সকলের সকল প্রশ্নের উত্তর আমি দিবো আমার মায়ের লাশ অফিসিয়ালি আমার হাতে পাওয়ার পরে।কিভাবে আমার মায়ের লাশ আমি খুঁজে পেলাম সেই গল্পও আপনাদের শুনাবো,একটু সময় আমাকে দয়া করে দিন। আমার মায়ের চুল,আমার মায়ের কপাল,আমার মায়ের হাত আমি চিনবো নাতো কে চিনবে”!

গত ২৭ আগস্ট রাতে পানি আনতে দুতলার বাসা থেকে নিচে নামেন রহিমা বেগম। এরপর একঘন্টা পর ফিরে না এলে খোঁজাখুঁজি শুরু হয়। এ সময় রাস্তায় পানির কলস,ওড়না এবং জুতা পড়ে থাকতে দেখা যায়। সেই রাতেই পরিবারের পক্ষ থেকে দৌলতপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। পরদিন ২৮ আগস্ট একই থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে আদুরী খাতুন অপহরণ মামলা করেন । এ মামলায় ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।১৪ সেপ্টেম্বর মামলাটি পিবিআইতে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। এরপর প্রক্রিয়া মেনে ১৭ সেপ্টেম্বর নথিপত্র বুঝে নেয় পিবিআই। এখন এই মামলা তদন্ত করছেন পিবিআইয়ের পরিদর্শক আব্দুল মান্নান।

গত ১০ সেপ্টেম্বর দুপুরে ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার ১০ নং বওলা ইউনিয়নের বওলা গ্রামে একটি কবরস্থানের ঝোপের ভিতর হলুদ বস্তাবন্দি অজ্ঞাত নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।লাশটি মরিয়ম মান্নানের মায়ের লাশ কিনা তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।তবে পুলিশ লাশটির আলামত ডিএনএ টেস্টের জন্য সংগ্রহ করেছে। বৃহস্পতিবার রাতে ফুলপুর থানার ওসির সাথে মরিয়ম মান্নানের কথা হয়। এ সময় ওসি লাশের সাথে পাওয়া আলামতের ছবি মরিয়মকে পাঠান। আলামতের ছবি দেখে লাশটি তার মায়ের দাবি করে মরিয়ম মান্নান ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন। তবে ওই লাশটি রহিমা বেগমের (৫২) কিনা তা নিশ্চিত নন ফুলপুর থানার পুলিশ। ফুলপুর থানা পুলিশের ভাষ্যমতে, লাশটির বয়স ৩০ এর কিছু বেশি হবে। লাশের বয়স এবং মরিয়মের মায়ের বয়সের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। তাই ডিএনএ টেস্ট ছাড়া নিশ্চিত হয়ে বলা যাবেনা যে এটাই রহিমা বেগমের লাশ।

গত ২৭ আগস্ট নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে বিভিন্ন যায়গায় সন্ধান করা হয়। তাছাড়া মরিয়ম সংবাদ সম্মেলন করেন এবং তার ভাইয়ের মাধ্যমে খুলনার বিভিন্ন স্থানে পোস্টার লাগিয়ে খোঁজ করেন।‌এরপরও পাওয়া যায়নি মায়ের লাশ

Leave a Reply

Your email address will not be published.