নো বলে বোল্ড মাহমুদউল্লাহ, হতাশ ক্যারিবীয় অধিনায়ক যা বললেন

নো বলে বোল্ড মাহমুদউল্লাহ, হতাশ ক্যারিবীয় অধিনায়ক যা বললেন

খেলা

জুলাই ১২, ২০২২ ৮:৫০ পূর্বাহ্ণ

নিজেদের ‘প্রিয়’ ফরম্যাট ওয়ানডেতে ফিরেই দাপুটে জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ।

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ম্যাচে দাপুটে বোলিংয়ে ক্যারিবীয়দের ১৪৯ রানে আটকে দেন শরীফুল-মিরাজরা। তখনই অনেকটা নির্ধারিত হয়ে যায়, ম্যাচটা বাংলাদেশের ভাগ্যেই যাচ্ছে।

এরপরও ১১১ রানের মধ্যে বাংলাদেশের ৪ উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচে ফেরার চেষ্টায় ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দ্রুত আরও দুই-একটি উইকেটের পতন ঘটাতে পারলেই ম্যাচ প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ হয়তো। যা থেকে জয়ভাগ্য নিজেদের দিকেও নিতে পারত ক্যারিবীয়রা।

সেই সম্ভাবনাও জাগিয়েছিলেন উইন্ডিজ অধিনায়ক নিকোলাস পুরান। বল হাতে নিয়েই বোল্ড করেছিলেন বাংলাদেশের অভিজ্ঞ ব্যাটার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। তখন ২০ রানে অপরাজিত ছিলেন মাহমুদউল্লাহ।

কিন্তু ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয় রিয়াদের। রিপ্লেতে দেখা যায়, সেই বলটি ছিল ফ্রন্ট ফুট নো বল। আউট হতো হলোই না উল্টো এক বল জরিমানা দিতে হলো উইন্ডিজকে।

নো বলে বোল্ড হয়ে জীবন পাওয়া মাহমুদউল্লাহ রিয়াদই শেষ পর্যন্ত খেলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন। ২০ রানে লাইফ পাওয়া এ ব্যাটার অপরাজিত থাকেন  ৬৯ বলে ৪১ রানের ইনিংস খেলে।

ম্যাচ শেষে সেই নো বল নিয়েই হতাশা প্রকাশ করেছেন ক্যারিবীয় অধিনায়ক নিকোলাস পুরান।

শুরু এটাই নয়; মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে আরও একটি হতাশার কারণ রয়েছে।

পুরানের পরের ওভারে আবারও আউট হতে পারতেন মাহমুদউল্লাহ। ইনিংসের ২৪তম ওভারের শুরুতেই  পুরানের দারুণ এক ডেলিভারি আঘাত হানে মাহমুদউল্লাহর প্যাডে। পুরানের আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার।

উইকেটরক্ষক শাই হোপের সঙ্গে আলোচনা করে রিভিউ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন পুরান।

কিন্তু টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, রিভিউ নিলে উইকেটটি পেতে পারতেন ক্যারিবীয় অধিনায়ক।

পরপর দুই ওভারে একই ভুল করায় পুরানের ওপর নাখোশ তার সতীর্থরা।এমনকি মজার ছলে তাকে মেরেও ফেলতে চাইছেন ক্যারিবীয় ক্রিকেটাররা।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে ওই নো বল আর রিভিউ না নেয়ার প্রসঙ্গে নিকোলাস পুরান বলেন, ‘অবশ্যই এটি (নো বল) প্রত্যাশিত নয়। আমি জানি ছেলেরা আমাকে এ জন্য মেরে ফেলবে। এটা অবশ্যই হতাশার। আর ওই (এলবিডব্লিউ!) আসলেই মাহমুদউল্লাহর ভাগ্যটা ভালো ছিল। আমি নিজেই অবাক হয়েছিলাম। কারণ বলটা অনেক বাঁক খেয়েছিল। শাই হোপ বলছিল, বলটা নাকি বেশিই বাঁক খেয়েছে। আমিও তা-ই বলছিলাম। বাকিরা অবশ্য বলছিল রিভিউ নিতে। কারণ তাদের মনে হয়েছে সেটা নিশ্চিত আউট ছিল।’

এরপর ক্যারিবীয় অধিনায়ক বলেন, ‘আমি তাদের কথা শুনে অবাক হয়েছিলাম। এখন তো সবাই আমাকে মেরে ফেলতে চাইছে। কোচ, ক্রিকেটার সবাই। আমার রিভিউ নেওয়া উচিত ছিল। কারণ দুটি রিভিউ ছিল আমাদের হাতে। কে জানে, হয়তো রিভিউটা নিলে খেলাটা বদলে যেতে পারতো। তখনো ৩৫-৪০ রান দরকার ছিল তাদের।’

এসব ভুল সিদ্ধান্তকে শুধরে নিয়ে ওয়ানডে সিরিজও জয়ে আশাবাদী পুরান। বললেন, ‘বাংলাদেশের বিপক্ষে শেষ কয়েকটি ওয়ানডে সিরিজে হেরেছি। তবে আমার মনে হয় ১-০-তে পিছিয়ে থাকলেও এই সিরিজটা আমরা জিতব। আমরা আগামীকাল আজকের ম্যাচটা নিয়ে ভেবে দেখব। পরশুর জন্য ভালো পরিকল্পনা করব এবং অবশ্যই ঘুরে দাঁড়াব।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.