সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোমতাজ, সম্পাদক দুলাল

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোমতাজ, সম্পাদক দুলাল

আদালত স্লাইড

এপ্রিল ২৮, ২০২২ ৮:২১ পূর্বাহ্ণ

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির (সুপ্রিম কোর্ট বার) ২০২২-২০২৩ বর্ষের নির্বাচনে সভাপতি পদে সিনিয়র অ্যাডভোকেট মো. মোমতাজ উদ্দিন ফকির ও সম্পাদক পদে মো. আবদুন নুর দুলালকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

নির্বাচন সংক্রান্ত নতুন সাব কমিটির প্রধান অ্যাডভোকেট অজি উল্লাহ বুধবার (২৮ এপ্রিল) রাত ১০টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করেন।

সভাপতি পদে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সাদা প্যানেলের প্রার্থী সিনিয়র অ্যাডভোকেট মো. মোমতাজ উদ্দিন ফকির বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল সমর্থিত নীল প্যানেলের ব্যারিস্টার মো. বদরুদ্দোজা (বাদল)। মোমতাজ উদ্দিন ফকির পেয়েছেন ৩ হাজার ২৪৪ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বাদল পেয়েছেন ২ হাজার ৪৭৯ ভোট।

সম্পাদক পদে মো. আবদুন নুর দুলালকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল সমর্থিত নীল প্যানেলের মো. রুহুল কুদ্দুস (কাজল)। দুলাল পেয়েছেন ২ হাজার ৮৯১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কাজল পেয়েছেন ২ হাজার ৮৪৬ ভোট। এ পদে ভোটের ব্যবধান হলো ৪৫ ভোট।

এর আগে কাজল সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে দাবি করেন গত ১৭ মার্চ আলাদা আলাদা টেবিলে ভোট গণনায় তিনি এগিয়ে ছিলেন। এ নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশ হয়। এর আগে কাজল টানা দুই বার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক নির্বাচিত হন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির দুই দিনব্যাপী ভোটগ্রহণ গত ১৫ ও ১৬ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ১৭ মার্চ রাতে ভোট গণনা আলাদা আলাদা ১০টি টেবিলে সম্পন্ন হলেও নির্বাচন সংক্রান্ত সাব-কমিটি সব টেবিলের ফলাফল যোগ করে তা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করতে পারেনি। সম্পাদক পদে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত প্রার্থী আবদুন নুর দুলালকে ব্যালট পুনরায় গণনার দাবি জানান। এ নিয়ে দফায় দফায় হট্টগোল সৃষ্টি হয়। নির্বাচন পরিচালনা সংক্রান্ত কমিটি এ নিয়ে ফল ঘোষণা বন্ধ রেখে আদালত প্রাঙ্গণ ত্যাগ করেন। সাব-কমিটি প্রধান সিনিয়র অ্যাডভোকেট এ ওয়াই মশিউজ্জামান দায়িত্ব পালনে অপারগতা প্রকাশ করে লিখিত দেন।

ফলাফল ঘোষণা অনিশ্চয়তায় পড়ে। এ অবস্থা নিরসনে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও সম্পাদকরা একটি বৈঠকে মিলিত হলেও ফলাফল ঘোষণা উদ্যোগ দেখা যায়নি।

এরই ধারাবাহিকতায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২১-২০২২ বর্ষের নির্বাচিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত ৭ সদস্য বসে ফলাফল ঘোষণায় একটি কমিটি গঠন করেন। যার প্রধান করা হয় সুপ্রিম কোর্ট বার এর সাবেক সহসভাপতি অ্যাডভোকেট অজি উল্লাহকে। গতকাল ২৬ এপ্রিল এক সংবাদ সম্মেলনে অজি উল্লাহ নেতৃত্বে সাত সদস্যের কমিটি আজ ২৭ এপ্রিল ভোট পুনর্গণনা করে ফলাফল ঘোষণা করা হবে বলে জানান।

এদিকে অ্যাডভোকেট অজি উল্লাহর নেতৃত্বে গঠিত কমিটিকে অবৈধ দাবি করে বুধবার সংবাদ সম্মেলন করেন সুপ্রিম কোর্ট বার এর ২০২১-২০২২ বর্ষের সম্পাদক ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজলসহ কমিটির বিএনপি ও সমমনা সমর্থিত নেতৃবৃন্দ।

বুধবার সম্পাদক পদের ভোট পুনরায় গণনা করা হয়েছে। অন্যান্য পদে পূর্বের গণনা বহাল রেখে ভোট যোগ করে ঘোষণা করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সাদা প্যানেল কার্যনির্বাহী কমিটির ১৪টি পদের মধ্যে সভাপতি, সম্পাদক, সহসভাপতি ২টি, কার্যনির্বাহী সদস্য তিনটিসহ মোট ৭টি পদে বিজয়ী হয়েছেন। অপরদিকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল সমর্থিত নীল প্যানেল কোষাধ্যক্ষ, দুটি সহসম্পাদক, চারটি সদস্যসহ মোট ৭টি পদে বিজয়ী হয়েছেন।

সাদা প্যানেলের বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন- সভাপতি পদে সিনিয়র অ্যাডভোকেট মো. মোমতাজ উদ্দিন ফকির, সম্পাদক আবদুন নুর দুলাল, সহ-সভাপতি পদে মো. শহীদুল ইসলাম ও মোহাম্মদ হোসেন। সদস্য পদে বিজয়ী হয়েছেন তিনজন। নির্বাচিতরা হলেন- ফাতেমা বেগম, শাহাদাত হোসাইন (রাজিব) ও সুব্রত কুমার কুন্ডু।

নীল প্যানেলের বিজয়ী প্রার্থীগণ হলেন কোষাধ্যক্ষ পদে মোহাম্মদ কামাল হোসেন, সহসম্পাদক পদে মাহফুজ বিন ইউসুফ ও মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান খান। সাতটি সদস্য পদের মধ্যে নীল প্যানেল থেকে চারজন নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন- কামরুল ইসলাম, মাহদীন চৌধুরী, মো. গোলাম আক্তার জাকির ও মো. মঞ্জুরুল আলম (সুজন)।

নির্বাচন পরিচালনায় সিনিয়র অ্যাডভোকেট এ ওয়াই মশিউজ্জামানের নেতৃত্বে সাত সদস্যের নির্বাচন উপকমিটি নির্বাচন ভোটগ্রহণের কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন। পরবর্তীতে এ কমিটি সরে দাঁড়ান।

গত ১৫ মার্চ ও ১৬ মার্চ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০২২-২৩ বর্ষের কার্যনির্বাহী কমিটির এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। মোট ৮ হাজার ৬২৩ জন আইনজীবী ভোটারের মধ্যে ৫ হাজার ৯৮২ জন আইনজীবী ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন।

ভোট নেয়ার জন্য সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে ৫২টি বুথ স্থাপন করা হয়। সুশৃঙ্খল ও উৎসবমুখর পরিবেশে ১৫ ও ১৬ মার্চ দুই দিনই সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবীরা ভোট দিয়েছেন।

কাযর্করী কমিটির সভাপতি পদে একটি, সহ-সভাপতি পদে দুটি, সম্পাদক পদে একটি, কোষাধ্যক্ষ পদে একটি, সহ-সম্পাদক পদে দুটি ও কার্যকরী কমিটির সদস্য পদে সাতটি পদসহ সর্বমোট ১৪টি পদে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো। এর মধ্যে কার্যকরী কমিটির সাতটি সদস্য পদের ভোট ডিজিটাল পদ্ধতিতে গণনা সম্পন্ন হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.