বাজা‌র থেকে উঠে যাচ্ছে এলজি’র স্মার্টফোন

বাজা‌র থেকে উঠে যাচ্ছে এলজি’র স্মার্টফোন

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

একসময় বৈশ্বিক স্মার্ট‌ফোন বাজা‌রের বড় একটা অংশ ছিল দক্ষিণ কো‌রিয়ার প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এলজি’র দখলে। অথচ ২০২১ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকে এসে স্মার্ট‌ফোন বাজার থেকে পু‌রোপু‌রি উঠে যা‌চ্ছে এলজি।

সোমবার এক বিবৃতিতে দক্ষিণ কোরিয়ার এলজি ইলেক্ট্রনিকস জানায়, মোবাইল বিভাগে প্রতিনিয়ত লোকসানের কারণে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে এলজিই প্রথম কোনো বৃহত্তম স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হিসেবে ‘মার্কেট আউট’ হচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, গত ছয় বছরে এ খাতে প্রায় ৪৫০ কোটি ডলার ক্ষতি হয়েছে প্র‌তিষ্ঠান‌টির। আর এই প্রচণ্ড প্রতিযোগিতামূলক ক্ষেত্রটি বাদ দিলে তারা ইলেকট্রিক গাড়ির যন্ত্রাংশ, সংযুক্ত ডিভাইস এবং ঘরবাড়ির স্মার্ট যন্ত্রাংশের মান বৃদ্ধির দিকে মনোনিবেশ করতে পারবে।

এক সময় এলজিই সর্বপ্রথম আলট্রা-ওয়াইড এঙ্গেল ক্যামেরাসহ বেশ কয়েকটি সেলফোন উদ্ভাবন করেছিল। অ্যাপল ও স্যামসাংয়ের পর এলজিই উত্তর আমেরিকার তৃতীয় জনপ্রিয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ডে। এমন সিদ্ধান্তের ফলে উত্তর আমেরিকাতে প্রতিষ্ঠানটি ১০ শতাংশ শেয়ার ছেড়ে যাচ্ছে। ২০১৩ সালে স্যামসাং আর অ্যাপলের পাশাপাশি বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম স্মার্টফোন প্রস্তুতকারক ছিল এলজি।

তবে পরবর্তীতে, এলজি’র ফ্ল্যাগশিপ মডেলগুলো সফটওয়্যার এবং হার্ডওয়্যার দু’টি ক্ষেত্রেই পিছিয়ে পড়ে। ধীরগতির সফ্টওয়্যার আপডেটের সঙ্গে সঙ্গেই ব্র্যান্ডটিও এক সময় প্রতিযোগিতার বাজারে পিছনে পড়ে যায়। তবে বিশ্লেষকরা মনে করেন চীনা প্রতিদ্বন্দ্বীদের তুলনায় বিপণন দক্ষতার পারদর্শীতার অভাবও এলজি’র পিছিয়ে পড়ার জন্য দায়ী।

স্মার্টফোন বিভাগটিই এলজি’র বাকি পাঁচটি বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে ছোট। মাত্র ৭ শতাংশ রেভিনিউ নিয়ে বিভাগটি ৩১ জুলাইয়ের মধ্যেই ক্ষতিগ্রস্ত হবার আশঙ্কায় রয়েছে।

তবে এই বিভাগের কর্মচারীদের অন্যান্য এলজি ইলেকট্রনিকস ব্যবসা এবং সহযোগী প্রতিষ্ঠানে স্থানান্তরিত করা হবে এবং অন্য কোথাও স্থানীয় পর্যায়ে কর্মসংস্থানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে এলজি কর্তৃপক্ষ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *