নালিতাবাড়ীতে বালু ব্যবসায়ীদের হাত থেকে ঝুকিপূর্ণ ব্রীজের পাড় রক্ষা

নালিতাবাড়ীতে বালু ব্যবসায়ীদের হাত থেকে ঝুকিপূর্ণ ব্রীজের পাড় রক্ষা

দেশজুড়ে

আগস্ট ৩১, ২০২২ ৫:৪৪ অপরাহ্ণ

মাহফুজুর রহমান সোহাগ, নালিতাবাড়ী (শেরপুর)

প্রকল্প ও রাস্তায় মাটি ফেলার নাম করে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলা ও ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার মধ্যবর্তী সংযোগ সড়কের ভালকাকুড়া-কালাপাগলা নামক স্থানে সুতিয়া নদীর উপড় নির্মিত চলাচলের একমাত্র নির্মিত ব্রীজটির নদীর তলদেশ হতে বালু উত্তোলন করছিল জনৈক বালু ব্যবসায়ী। পরে গত ২৯ আগস্ট, সোমবার দুপুরে নালিতাবাড়ী উপজেলা প্রশাসন, ইউপি চেয়ারম্যান ও সাংবাদিকদের হস্তক্ষেপে ব্রীজের ঝুকিপূর্ণ স্থান হতে বালু উত্তোলন বন্ধ করে দেওয়া হয়। ফলে বালু ব্যবসায়ীদের হাত থেকে ঝুকিপূর্ণ ব্রীজ ও ব্রীজের পাড় রক্ষার আওতায় আসে এবং এলাকাবাসীর মাঝে স্বস্তি বিরাজ করছে।

এলাকাবাসীর সূত্র জানায়, শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলা ও ময়মনসিংহ হালুয়াঘাট উপজেলার মধ্যবতীর্ সংযোগ সড়কে ভালকাকুড়ার কালাপাগলা নামক স্থানে সুতিয়া নদীর উপড় ১৯৮৮ সালে ইএসএআইডির অথার্য়নে এলজিইডির তত্বাবধানে নির্মিত হয় একটি ব্রীজ। চলাচলের একমাত্র নির্মিত ব্রীজটির নদীর তলদেশ হতে বালু উত্তোলন করছিল জনৈক বালু ব্যবসায়ী। এ নিয়ে এলাকাবাসী প্রতিবাদ করলে উল্টো বালু তুলবে মর্মে ঘোষণা দেন জনৈক বালু ব্যবসায়ী।

নালিতাবাড়ীতে বালু ব্যবসায়ীদের হাত থেকে ঝুকিপূর্ণ ব্রীজের পাড় রক্ষা

খবর পেয়ে গণমাধ্যমকর্মীগণ সরেজমিনে পরিদর্শনে গেলে বিষয়টির সত্যতা মিলে এবং গণমাধ্যমকর্মীগণ জনৈক বালু ব্যবসায়ীকে ব্রীজের ঝুকিপূর্ণ স্থান হতে বালু তুলতে ও মেশিন সরিয়ে নিতে বললে সে বালু তুলবে বলে গণমাধ্যমকর্মীদের ঘোষণা দেন। পরে বিষয়টি উপজেলা নালিতাবাড়ী উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা হেলেনা পারভীন ও চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদকে অবহিত করলে তারা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে সেখান থেকে জনৈক বালু ব্যবসায়ী মেশিন সরিয়ে নিয়ে গেছে বলে এলাকাবাসী নিশ্চিত করেছে।

এলাকাবাসী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, দুই উপজেলার একমাত্র চলাচলের ব্রীজ এটি। আমিসহ এলাকাবাসী এই ব্রীজের নিচ হতে তাদেরকে বালু তুলতে অনেক দিন নিষেধ করেছি। তারা প্রভাবশালী হওয়ায় কোন কথা তারা শুনেনি। অবশেষে গণমাধ্যম ও প্রশাসনের সহযোগিতায় বিষয়টির সমাধান মিলেছে।

নালিতাবাড়ীতে বালু ব্যবসায়ীদের হাত থেকে ঝুকিপূর্ণ ব্রীজের পাড় রক্ষা

বালু ব্যবসায়ী হেলাল উদ্দিন বলেন, নিচে কিছু বালু ছিল। সেটি প্রকল্প ও রাস্তার কাজে ব্যবহার করতে চেয়েছিলাম।

নালিতাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, আমি তাদের সেখান থেকে বালু তুলতে নিষেধ করে দিয়েছি। তারা আর সেখান থেকে বালু তুলবে না।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আঃ হান্নান বলেন, আমার জানা মতে সেখানে কোন প্রকল্প নেই।

নালিতাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হেলেনা পারভীন বলেন, ব্রীজের ঝুকিপূর্ণ স্থান হতে বালু উত্তোলন নিষেধ। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *