টেন্ডুলকারের টেস্ট রানের রেকর্ড ভাঙবে রুট : টেইলর

টেন্ডুলকারের টেস্ট রানের রেকর্ড ভাঙবে রুট : টেইলর

খেলা

জুন ৭, ২০২২ ১০:৩২ পূর্বাহ্ণ

টেস্ট ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রানের মালিক ভারতের শচীন টেন্ডুলকার। ভারতের মাস্টার ব্লাস্টারের এই রানের রেকর্ড ইংল্যান্ডের জো রুট ভাঙ্গবে বলে মনে করেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক মার্ক টেইলর।

টেইলরের মতে রুটের ব্যাটিং পারফরমেন্স এটাই ইঙ্গিত দিচ্ছে যে,  টেস্টের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক টেন্ডুলকারের রেকর্ড ভেঙ্গে ফেলবেন এই ইংলিশ তারকা।

গতকাল শেষ হওয়া লর্ডস টেস্টে বিশ্বের ১৪তম ক্রিকেটার হিসেবে ১০ হাজার রান পূর্ণ করেন রুট। ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে অপরাজিত ১১৫ রান করার পথে ১০ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন রুট। টেস্ট ইতিহাসের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ১০ বছরের কম সময়ে ১০ হাজার রান করেন তিনি। ২০১২ সালের ডিসেম্বরে টেস্ট অভিষেক হবার পর ১০ হাজার রান করতে ৯ বছর ১৭১ দিন লাগলো রুটের।

রুটের আগে এই রেকর্ড গড়েছিলেন ইংল্যান্ডের অ্যালিস্টার কুক। ১০ বছর ৮৭ দিনে ১০ হাজার রান করেন কুক।

আর কুকের পর দ্বিতীয় ইংলিশ ক্রিকেটার হিসেবে এই কীর্তি গড়েন রুট। ১০ হাজার রান করতে ১১৮ ম্যাচ ও ২১৮ ইনিংস খেলেছেন তিনি। ২০০ টেস্টের ৩২৯ ইনিংসে ১৫৯২১ রান করেছেন টেন্ডুলকার।

তবে রুট যে গতিতে এগোচ্ছেন, তাতে ভবিষ্যতে টেন্ডুলকারকে টপকে যাবেন বলে মনে করেন টেইলর।

স্কাই স্পোর্টসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে টেইলর বলেন, এখনও অন্তত পাঁচ বছর খেলতে পারে রুট। তাই আমার মনে হয়, টেন্ডুলকারের রেকর্ড ভাঙা তার পক্ষে সম্ভব। গত ১৮ মাস, দুই বছর ধরে রুটকে ভালো খেলতে দেখছি আমি। সে তার ক্যারিয়ারের সেরা সময়ের মধ্যে আছে। যদি সুস্থ থাকে, তবে ১৫ হাজার রান করতে পারে সে।

লর্ডসে রুটের ১১৫ রানের উপর ভর করেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয়ের স্বাদ পায়  ইংল্যান্ড। নয় টেস্ট পর জয়ের মুখ দেখে ইংলিশরা।

গেল বছর টেস্ট ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ছিলেন রুট। ১৫ ম্যাচে ১৭০৮ রান করেছিলেন তিনি। এক বর্ষ পঞ্জিকায় সর্বোচ্চ রানের ক্ষেত্রে রুটের এই রান তৃতীয়স্থানে আছে।

ব্যাট হাতে দুর্দান্ত ফর্মে থাকলেও, অধিনায়ক হিসেবে সময়টা মোটেও ভালো যায়নি রুটের। গত বছর ১৫ ম্যাচে মাত্র ৪ জয় ছিলো ইংল্যান্ডের। তাই বাধ্য হয়ে গেল মাসে নিজ থেকেই অধিনায়কত্ব ছাড়েন তিনি। অধিনায়কত্ব ছাড়লেও, ব্যাট হাতে নিজের ফর্ম ঠিকই ধরে রাখেন রুট।

Leave a Reply

Your email address will not be published.