গর্ভবতী মায়েরা সেহরি, ইফতার ও রাতের খাবারে যা খাবে

গর্ভবতী মায়েরা সেহরি, ইফতার ও রাতের খাবারে যা খাবে

স্বাস্থ্য

এপ্রিল ২০, ২০২১ ১২:৫১ অপরাহ্ণ

প্রতিটি নারীর জন্যই গর্ভকালীন সময়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এসময় তাদের একটু বেশি সচেতন থাকতে হয়। খাবার থেকে শুরু করে ঘুম সবকিছুতেই একটু বাড়তি সতর্কতার প্রয়োজন পড়ে। রোজার ক্ষেত্রেও এর ভিন্ন কিছু হয় না। সঠিক নিয়ম অনুসরণ করে কোনো গর্ভবতী নারী যদি রোজা রাখতে চান, তাহলে অবশ্যই একজন ভালো চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া উচিত।

গর্ভকালীন প্রথম তিন মাসে রোজা রাখা মা এবং সন্তানের জন্য কিছুটা ঝুকিপূর্ণ। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞের মতামত নিয়ে রোজা পালন করা জরুরি। মা ও শিশুর পুষ্টি নিশ্চিত করতে সেহরি ও ইফতারির খাদ্য তালিকায় যা থাকা উচিত চলুন তা জেনে নেয়া যাক-

গর্ভবতী মায়ের সেহরিতে যা থাকবে

আঁশযুক্ত খাবার যেমন- ওটস, মটর, শিম, ডাল, বার্লি, লাল আটার রুটি ইত্যাদি।

প্রোটিন ও ক্যালরিসম্পন্ন খাবার যেমন- ভাত, মাছ, মাংস, ডিম ও ডিমের তৈরি খাবার, বাদাম ইত্যাদি।

দুধ ও দুধের তৈরি খাবার- টক দই, মিষ্টি দই, লাচ্ছি, ফ্রুট কাস্টার্ড, ফালুদা, পুডিং ইত্যাদি।

গর্ভবতী মায়ের ইফতারিতে যা থাকবে

খেজুর, আপেল, কলাসহ অন্যান্য ফল অবশ্যই থাকা লাগবে। তবে পেঁপে এবং আনারস হজমে জটিলতা থাকায় এগুলো বাদ দেয়াই ভালো। নানারকম দেশি সবজি যেমন- লাউ, চিচিঙ্গা, চাল কুমড়া ইত্যাদির সাথে চিকেন স্যুপ।

পানি পর্যাপ্ত পরিমান খেতে হবে। অথবা পানির বিকল্প হিসেবে তাজা ফলের রস, গ্লুকোজ, ডাবের পানি ইত্যাদি। প্রোটিনের চাহিদা পূরণে মাছের কাটলেট, দেশি কচি মুরগির মাংস, মাংসের তৈরি অন্যান্য খাবার যেমন- কিমা, চিকেন শর্মা, চপ, ডিম ও ডিমের তৈরি খাবার খেতে হবে। ওমেগা-৩ ও ওমেগা-৬ এর চাহিদা পূরণ করতে পারে নানারকম সামুদ্রিক মাছ।

গর্ভবতী মায়ের সন্ধ্যা রাতের খাবার

রুটি, চিড়া, মুড়ি জাতীয় খাবার খাওয়া যেতে পারে। যেকোনো ফল বা তাজা ফলের জুস। পানি অন্তত ১৫ থেকে ২০ গ্লাস (সেহরি পর্যন্ত)

ইফতারির পর থেকে প্রতি ২ ঘন্টা বিরতিতে খাবার খেতে হবে। পাকস্থলী পূর্ণ করে খাওয়া যাবে না। কারো গর্ভকালীন সময়ে ডায়াবেটিস থাকলে, ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রনে রাখা খুবই জরুরি। একজন পুষ্টিবিদের পরামর্শ মতো খাদ্যতালিকা বানিয়ে সেই অনুযায়ী চলা উচিত। ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, ও ভিটামিন সি জাতীয় খাবার অবশ্যই রাখতে হবে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায়।

গর্ভবতী মায়েরা, একজন ভালো চিকিৎসকের পরামর্শ ও পুষ্টিবিদের খাদ্য তালিকা মেনেই রোজা রাখুন। এতে ভালো থাকবে মা, ভালো থাকবে অনাগত শিশু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *