কান্নার উপকারিতা জানলে অবাক হবেন

কান্নার উপকারিতা জানলে অবাক হবেন

স্পেশাল স্বাস্থ্য

অক্টোবর ১২, ২০২১ ১০:১২ পূর্বাহ্ণ

কান্না মন ও শরীর দুইয়ের জন্যই ভালো, এমনটাই জানাচ্ছেন মনোবিদরা। তাই কান্না পেলে তা আটকানোর প্রয়োজন নেই বরং কেঁদে নেয়াই ভালো। বন্ধু বা পরিবারের কাছে ছিঁচকাঁদুনে হিসেবে পরিচিত হলেও সমস্যা কি, বরং এটা আপনার জন্যই ভালো!

চলুন এবার কান্না করার উপকারিতা দেখে নেয়া যাক-

চোখ পরিষ্কার থাকে

কাঁদার সময় যে পানি বের হয় তা আমাদের চোখের মণি আর চোখের পাতা ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করে দেয়। এটি আমাদের চোখকে শুষ্ক হয়ে যাওয়া থেকেও বাঁচায়। ফলে এটি চোখ পরিষ্কার রাখতে আর দৃষ্টি পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

ঘুম ভালো হয়

২০১৫ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে হওয়া একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কাঁদার সময় আমাদের শরীরের ভেতরে এমন কিছু হরমোনের ক্ষরণ বেড়ে যায়, যার প্রভাবে তাড়াতাড়ি ও প্রশান্তির ঘুম আসে।

মন ভালো রাখে

মনের মধ্যে চেপে রাখা কষ্ট যদি কান্নার মাধ্যমে বেরিয়ে আসে, তাহলে মন হালকা হয়। তাই মনোবিদরা বলেন মন খারাপ হলে, কান্না পেলে নিজেকে না আটকাতে। বরং সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা সহজেই চোখের জল ফেলতে পারেন, তারা অবসাদের সঙ্গে খুব ভালো মোকাবিলা করতে পারেন।

ব্যাক্টেরিয়া ও জীবাণু শেষ হয়

চোখের জলে থাকা অ্যান্টি-ব্যাক্টেরিয়াল উপাদান চোখে থাকা ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস দূর করে। রাস্তা-ঘাটে, বাসে-ট্রামের ধুলো-বালি থেকে সারা দিনে চোখের ভেতর কত ময়লাই না জমা হয়। এগুলো থেকে নানা জীবাণু আমাদের চোখের ভিতরে বাসা বাঁধতে পারে। কিন্তু চোখের জল সেসব জীবাণু ধ্বংস করতে খুবই কার্যকরী। চোখের জলে থাকা আইসোজাইম মাত্র ৫-১০ মিনিটে চোখে বাসা বঁধা ৯০-৯৫ শতাংশ ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলতে পারে।

চাপ কমে

কাঁদলে অতিরিক্ত এটিসিএইচ হরমোন বের হয়ে যায় এবং কর্টিসোলের পরিমাণ কমে যায়। ফলে মনের ভেতরে থাকা চাপ কমে যায়। আমাদের শরীরে থাকা চাপ নিবারক আরেকটি উপাদান হচ্ছে লিউসিন এনকেফালিন। কান্নার ফলে এটি নিঃসৃত হয়। এটি ব্যথা কমায় এবং মন ভালো করে দেয় নিমেষে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *