করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ‘উল্লেখযোগ্যভাবে কম’ দেখানো হয়েছে: ডব্লিউএইচও

করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ‘উল্লেখযোগ্যভাবে কম’ দেখানো হয়েছে: ডব্লিউএইচও

স্পেশাল স্বাস্থ্য

মে ২২, ২০২১ ১০:৪৪ পূর্বাহ্ণ

স্বাস্থ্য ডেস্ক: কোনো ভাবেই থামছে না করোনার তাণ্ডব। করোনার টিকা আবিষ্কার হলেও দিন দিন এ রোগটি আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। প্রতিদিনই দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর সারি, আক্রান্তও হচ্ছে লাখে লাখে। মহামারি এ ভাইরাসের নতুন নতুন ধরন মানুষের মনে আতঙ্ক বাড়িয়ে দিয়েছে। তবে এ ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা সরকারি পরিসংখ্যানে ‘উল্লেখযোগ্যভাবে কম’ দেখানো হয়ে থাকতে পারে বলে মন্তব্য করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

শুক্রবার (২১ মে) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য পরিসংখ্যান’ বিষয়ক বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে।

ডব্লিউএইচও এর মতে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের প্রকৃত সংখ্যা সরকারি পরিসংখ্যানের থেকে দুই থেকে তিন গুন বেশি হতে পারে।

প্রতিবেদনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, ২০২০ সালে মহামারি করোনাভাইরাসের মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মোট সংখ্যা সরকারিভাবে ঘোষিত সংখ্যা ১৮ লাখ। কিন্তু এ সংখ্যা আরও অন্তত ১২ থেকে ৩০ লাখ বেশি বলে ধারণা তাদের।

জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, ‘করোনায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের যে পরিসংখ্যান আমরা জানতে পারছি, তাতে গুরুত্বপূর্ণ ঘাটতি রয়েছে।’

ডব্লিউএইচও’র বৃহস্পতিবারের (২০ মে) পরিসংখ্যান অনুযায়ী, মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর বিশ্বজুড়ে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন প্রায় ৩৪ লাখ মানুষ। এ প্রসঙ্গে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, মৃতের প্রকৃত সংখ্যা এই সংখ্যার চেয়ে অনেক বেশি হতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উপাত্ত ও তথ্য বিশ্লেষণ শাখার সহকারী মহাপরিচালক সামিরা আসমা বলেন, ‘করোনার নতুন ধরনগুলোতে এশিয়া ও লাতিন আমেরিকায় মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে। এ মহামারিতে মৃতের সংখ্যা সত্যিকার অর্থে দুই থেকে তিন গুণ বেশি হবে। ‘তাই আমি মনে করি, মৃতের সংখ্যা আনুমানিক ৬০ থেকে ৮০ লাখ বিবেচনা করাটা নিরাপদ হবে।’

সংস্থার মতে, অনেক দেশেই করোনায় মৃত্যুর ঘটনা নথিভুক্ত করার গ্রহণযোগ্য পদ্ধতির অভাব রয়েছে এবং অনেক ঘটনায় দেখা গেছে করোনা পরীক্ষার আগেই এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অনেকেই মারা গেছেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য ও উপাত্ত বিশ্লেষক উইলিয়াম সেমবুরি বলেন, এমন অনেক ঘটনা আছে যে করোনায় মারা গেছেন অথচ খবর প্রকাশিত হয়নি ও এ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে অনেকেই পরোক্ষভাবে মারা গেছেন যেমন- হাসপাতালে সক্ষমতার ঘাটতিতে, চলাচলের ওপর বিধিনিষেধ ও অন্যান্য কারণে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের শরণাপন্ন হয়নি।

ডব্লিউএইচওর ধারণা মতে, ২০২০ সালে ইউরোপের দেশগুলোতে সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬ লাখের দ্বিগুণ। কিন্তু প্রকৃত সংখ্যা সরকারি হিসাবের চেয়ে ১১ থেকে ১২ লাখ বেশি। আবার যুক্তরাষ্ট্রে সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৯ লাখের মত কিন্তু প্রকৃত সংখ্যা সরকারি হিসাবের চেয়ে  ১৩ থেকে ১৫ লাখ যা সরকারি হিসেবের চেয়ে ৬০ শতাংশ বেশি।

সূত্র: রয়টার্স

Leave a Reply

Your email address will not be published.